বাংলাদেশের মানুষের শীতকালীন জীবন-যাত্রা । শীতের সকাল

আসমা আক্তার শান্তা
প্রকাশকাল (১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭)

f
g+
t

শীতকাল বাংলাদেশের মানুষের জীবনে এক অন্যরকম আবহ নিয়ে আসে। ঘন কুয়াশার সাথে উত্তোরে ঠান্ডা হাওয়ায় আগুন পোহানো গ্রাম বাংলার মানুষের নিত্য দিনের অভ্যাস হয়ে উঠে। তাছাড়া, একগাধা কাপড় জড়িয়ে সকাল বেলা রোদ পোহানোত আছেই। রাস্তার পাশে খেজুর গাছে পাখ-পাখালির রস খাওয়ার দৃশ্য সত্যি মনোমুগ্ধকর। এছাড়া ফেরিওয়ালাদের কাঁধে নিয়ে কলসি ভরে এবাড়ি ওবাড়ি খেজুর রস বিক্রি তো আছেই। তাছাড়া বাহারি পিঠার সাধ এবং চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতেই বাঙ্গালীর শীতকাল কেটে যায়।

বাংলাদেশের মানুষের শীতকালীন জীবন-যাত্রা । শীতের সকাল

ছবি আসমা আক্তার শান্তা

বাঙ্গালীর বিনোদনের একাল সেকাল

শরীর ভালো রাখার উপায় হিসেবে কায়িক শ্রমের গুরুত্ব

শীতের সকালের দৃশ্য

শীত হচ্ছে বাংলাদেশের মানুষের অত্যন্ত প্রিয় ঋতু। তাই শীতের সকালটা বাংলাদেশের মানুষের কাছে অন্য রকমের আমেজ নিয়ে আসে। শীতের সকালে গ্রাম - বাংলার মহিলারা উঠানের এককোণে মাটির চুলায় পিঠা বানায় এবং অন্য সদস্যরা চুলার চারপাশে গোল করে বসে মজা করে পিঠা খায় আর আগুন পোহাই।

শীতের সকালে ঘন কুয়াশায় চারদিক অন্ধকারে ঢাকা থাকে। এরপর সূর্যটা যখন পূর্বদিকে ঊঁকি দেয় তখন ঘাসের ওপর জমে থাকা শিশিরগুলো ঝলমল করতে থাকে। তখন সবাই রোদে বসে গল্প গুজব করে এবং বিভিন্ন কাজকর্ম করে থাকে। শিশুরা রোদে বসে বিভিন্ন খেলাধুলা করে এবং পাটালি গুড় দিয়ে মুড়ি, চিরা ও মোয়া ইত্যাদি খেয়ে থাকে।

তাছাড়া শীতকালে গ্রামে প্রত্যেক ঘরে ঘরে পিঠা তৈরি লেগেই থাকে। খেজুর রস দিয়ে বিভিন্ন ধরনের পিঠা খাওয়া গ্রাম - বাংলার এতিহ্য। যেমন - ভাপা পিঠা, ম্যারা পিঠা, চিতোই পিঠা, দুধ চিতোই, পাটিসাপটা, পুয়া পিঠা, ছিটা পিঠা ইত্যাদি। এছাড়া খেজুর রসের সেমাই ও ফিরনি তো আছেই।

শহরে শীতকালটা অন্য রকমভাবে আসে। সবাই কম্বল গায়ে দিয়ে বড় বড় দালানকোঠায় ঘুমিয়ে থাকে। যারা শহরের ফুটপাতে থাকে শীতের সময় তারা খুব কষ্ট করে।

শহরের অলিতে গলিতে ছোট ছোট দোকানে অনেকে চা খেতে আসে সকালটা উপভোগ করার জন্য। আবার অনেকে রাস্তার পাশে বানানো চাটনি দিয়ে ভাপা পিঠা খেতে পছন্দ করে।

শীতকালের খাওয়া দাওয়া

শীতকালের অনেকগুলো সুবিধার মধ্যে অন্যরকম সুবিধা হচ্ছে খাওয়া দাওয়ার সুবিধা। কারন শীতকালে নিত্য নতুন মৌসুমি সবজি পাওয়া যায় এবং যা রান্না করা হয় তা মজা করে খাওয়া যায়।

শীতকালে বিভিন্ন ধরনের সবজি যেমন লালশাক, মুলাশাক, পালংশাক, শিম, ফুলকপি, বাঁধাকপি, নতুন আলু, টমেটো, গাজর, খিরা, লাউ, মিষ্টি কুমড়া, কাঁচামরিচ, ধনিয়াপাতা, পুদিনাপাতা ইত্যাদি পাওয়া যায়।

শীতকালে গ্রামের লোকেরা শিং মাছ ও কৈ মাছ দিয়ে শিমের বিচি রান্না, লাউ পাতা দিয়ে ইলিশ শুটকি ভাজা, হাঁসের মাংস এছাড়া ভর্তার মধ্যে শুটকি ভর্তা, শিমের ভর্তা, বেগুন ভর্তা, ধনিয়াপাতার ভর্তা, পুদিনাপাতার ভর্তা ইত্যাদি।

এসময় বাজারে বিভিন্ন ধরনের মাছ যেমন লইট্যা, ছুরি মাছ, বোয়ালমাছ, শিং মাছ, মাগুর মাছ, ঠাকি মাছ, রুপচাঁদা মাছ, পুটি মাছ, রুই, কাতলা ইত্যাদি। এছাড়া এসময় সবার ঘরে ঘরে বিভিন্ন রকমের পিঠা তৈরি তো আছেই।

শীতে বেড়াতে যাওয়া

বাংলাদেশের মানুষের কাছে শীতকাল প্রিয় হওয়ার অন্যতম কারন হচ্ছে এখানে ওখানে বেড়াতে যাওয়া। এসময় মানুষ একাকী, পরিবার - পরিজন, বন্ধু- বান্ধব, আত্নীয়-সব্জনের সাথে, স্কুল- কলেজ থেকে, অফিস থেকে, বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে, নিজ নিজ এলাকা থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন দর্শনীয় জায়গায় ঘুরতে যায়।

কারন বাংলাদেশ হচ্ছে প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য্যের লীলাভূমি। তাছাড়া শীতকাল দূরে কোথাও বেড়াতে যাওয়ার জন্য বাংলাদেশের মানুষের পক্ষে উপযোগী জলবায়ু।

তাছাড়া বাংলাদেশের মানুষ প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করে নিজের মন ও প্রাণ সার্থক করতে চায় এবং বিচিত্র অভিজ্ঞতা অর্জন করতে চায়। বাংলাদেশের মানুষ যেসব দর্শনীয় জায়গায় ঘুরে বেড়াতে পছন্দ করে তাহল - বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান, পাহাড়- পর্বত, সমুদ্র সৈকত, বিভিন্ন পার্ক ইত্যাদি।

সব মিলিয়ে শীতকাল হচ্ছে জীবনটাকে সুন্দরভাবে উপভোগ করার সর্বোত্তম সময়। কারন শীতকালে আকাশ পরিষ্কার থাকে, ঝড় বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকেনা মোটকথা প্রকৃতি তার রুপ বৈচিত্র্য মেলে ধরে দর্শনার্থীদের জন্য। বিশেষ করে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে যাওয়ার জন্য শীতকালের বিকল্প কিছু হতে পারেনা।

আসমা আক্তার শান্তা-এর আরও প্রবন্ধ পড়ুন

* ক্যারামেল পুডিং বানানোর সহজ রেসিপি | পুডিং তৈরির পদ্ধতি

* তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার ও মানবজীবনে এর প্রভাব

* হুমায়ূন আহমেদ এর জীবনী, কবিতা, নাটক, গল্প এবং উপন্যাস সমগ্র

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আরও প্রবন্ধ পড়ুন



বিজ্ঞাপন



© ২০১৬ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত LearnArticle.com