চট্টগ্রামের সবকটি জেলায় কয়টি উপজেলা ও পৌরসভা (মানচিত্র সহ)

ইরফান রানা
প্রকাশকাল (০৪ এপ্রিল ২০১৭)

f
g+
t

চট্টগ্রাম বিভাগ বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত অন্যতম একটি প্রশাসনিক এলাকা। এই বিভাগ যেমন ব্যবসা বাণিজ্যের দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ তেমনি পর্যটন শিল্পের জন্যও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ টি প্রশাসনিক জেলা, ১০০টি উপজেলা এবং ৬০ টি পৌরসভা আছে। এই বিভাগের মধ্যে বাংলাদেশের পার্বত্য অঞ্চলের তিনটি জেলা বান্দরবান, খাগড়াছড়ি এবং রাঙ্গামাটি অবস্থিত। নিচে চট্টগ্রাম বিভাগের সবকটি জেলার সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। মানচিত্র দেখে চট্টগ্রাম বিভাগের সবকটি জেলার অবস্থান সম্পর্কে ধারণা পেতে পারেন।

চট্টগ্রামের সবকটি জেলায় কয়টি উপজেলা ও পৌরসভা (মানচিত্র সহ)

ছবি ইরফান রানা

ময়মনসিংহ বিভাগের সব জেলার জনপ্রিয় বিখ্যাত দর্শনীয় স্থান সমূহ

সিলেট বিভাগের সব জেলার বিখ্যাত ও জনপ্রিয় দর্শনীয় স্থানসমূহ

বান্দরবান জেলা

বান্দরবান পার্বত্য চট্টগ্রামের একটি অন্যতম জেলা। বান্দরবান পার্বত্য জেলায় অনেক ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জনগন বসবাস করে। চট্টগ্রাম থেকে বান্দরবান জেলার দূরত্ব ৭৫কিলোমিটার। ১৮ এপ্রিল ১৯৮১ সালে বান্দরবান একটি প্রশাসনিক জেলা হিসেবে কাজ শুরু করে। বাংলাদেশের অন্যতম জেলা যার মায়ানমারের সাথে সীমান্ত রয়েছে। বান্দরবান জেলায় উপজেলার সংখ্যা ৭ টি যথা- বান্দরবান সদর, আলীকদম, নাইক্ষ্যংছড়ি, রোয়াংছড়ি, লামা, রুমা এবং থানচি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া চট্টগ্রামের একটি প্রশাসনিক জেলা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ১৯৮৪ সালে যাত্রা শুরু করে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা তিতাস নদীর তীরে অবস্থিত। আখাউরা বাংলাদেশের বৃহত্তম রেল জংশন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বাংলাদেশের পূর্বাঞ্চলের একটি সীমান্তবর্তী জেলা। বিখ্যাত আশুগঞ্জ স্থলবন্দর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় অবস্থিত। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ৯ টি উপজেলা রয়েছে - ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, কসবা, নাসিরনগর, সরাইল উপজেলা, আশুগঞ্জ, আখাউড়া, নবীনগর, বাঞ্ছারামপুর এবং বিজয়নগর।

চাঁদপুর জেলা

চাঁদপুর বৃহত্তর কুমিল্লা অঞ্চলে অবস্থিত। ১৯৮৪ সালে চাঁদপুর প্রশাসনিক জেলা হিসেবে কার্যক্রম শুরু করে। চাঁদপুর জেলার আয়তন ১৬৪৫.৩২ বর্গকিলোমিটার। চাঁদপুর জেলায় ৮ টি উপজেলা হাইমচর, কচুয়া, শাহরাস্তি, চাঁদপুর সদর, মতলব, হাজীগঞ্জ, মতলব এবন ফরিদগঞ্জ। বাংলাদেশের একমাত্র নদী গবেষণা ইন্সটিটিউট চাদপুরে অবস্থিত। চাঁদপুর জেলা মেঘনা নদীর তীরে অবস্থিত।

চট্টগ্রাম জেলা

চট্টগ্রাম জেলা বাংলাদেশের দক্ষিণপূর্বাঞ্চলে সমুদ্র সৈকতজুড়ে অবস্থিত। চট্টগ্রাম জেলার পূর্ব নাম ইসলামাবাদ/ পোর্ট গ্র্যান্ড/ চট্টলা/ চাটগাঁও। চট্টগ্রাম বাংলাদেশের প্রথম জেলা হিসেবে ১৬৬৬ সালে যাত্রা শুরু করে। ১৮৮৮ সালে বাংলাদেশের প্রথম সমুদ্র বন্দর চালু হয় যার মাধ্যমে দেশের আমদানি রপ্তানি বাণিজ্যের প্রায় ৯০% সংগঠিত হয়। চট্টগ্রাম জেলার আয়তন ৫২৮২.৯২ বর্গকিলোমিটার। চট্টগ্রামের থানার সংখ্যা ১৪তি রাঙ্গুনিয়া, সীতাকুন্ড উপজেলা, মীরসরাই, পটিয়া, সন্দ্বীপ, বাঁশখালী, বোয়ালখালী, আনোয়ারা, চন্দনাইশ, সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, হাটহাজারী, ফটিকছড়ি এবং রাউজান।

কুমিল্লা জেলা

কুমিল্লা জেলা ১৭৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। কুমিল্লার আয়তন ৩১৪৬.৩০ বর্গকিলোমিটার। জেলাটি গোমতী নদীর তীরে অবস্থিত। বাখরাবাদ, বাঙ্গুরা এবং সালদা গ্যাসক্ষেত্র কুমিল্লাতে অবস্থিত। কুমিল্লা জেলায় দেবিদ্বার, বরুড়া, ব্রাহ্মণপাড়া, চান্দিনা, চৌদ্দগ্রাম, দাউদকান্দি, হোমনা, লাকসাম, মুরাদনগর, নাঙ্গলকোট, কুমিল্লা সদর, মেঘনা, মনোহরগঞ্জ, সদর দক্ষিণ, তিতাস ও বুড়িচং মোট ১৬ টি উপজেলা রয়েছে।

কক্সবাজার জেলা

বাংলাদেশের পর্যটন রাজধানী কক্সবাজার। এখানে রয়েছে অসংখ্য সমুদ্র সৈকত। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত পৃথিবীর বৃহত্তম সমুদ্র সৈকত হিসেবে স্বীকৃত। তাছাড়া কক্সবাজারে অসংখ্য দর্শনীয় স্থান রয়েছে যেখানে হাজার হাজার দেশি এবং বিদেশি পর্যটক ভ্রমণ করতে আসে। পর্যটকদের থাকার জন্য কক্সবাজারে অসংখ্য হোটেল প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। কক্সবাজারের হোটেল ব্যবসা বাংলাদেশের একটি সতন্ত্র শিল্প হিসেবে জায়গা দখল করে নিয়েছে। কক্সবাজার জেলায় উপজেলার সংখ্যা ৮টি যথা কক্সবাজার সদর, চকরিয়া, কুতুবদিয়া, উখিয়া, মহেশখালী, পেকুয়া, রামু ও টেকনাফ। ১৯৮৪ সালে ২৪৯১ বর্গকিলোমিটার এলাকা নিয়ে কক্সবাজার জেলা গঠিত হয়। বাংলাদেশের সবচেয়ে ছোট ইউনিয়ন সেন্টমার্টিন বা দারুচিনির দ্বীপ অবস্থিত যা বাংলাদেশের সর্বদক্ষিণের স্থান।

ফেনী জেলা

ফেনী জেলা বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বিভাগে অবস্থিত। ১৯৮৪ সালে ৯৯০ বর্গকিলোমিটার অঞ্চল নিয়ে ফেনী প্রশাসনিক জেলা ঘোষণা করা হয়। ফেনী জেলা ফেনী নদীর নামানুসারে নামকরন করা হয়েছে। ফেনী জেলার পূর্ব নাম শমসেরনগর। ফেনী জেলার উপজেলার সংখ্যা ৬টি ছাগলনাইয়া উপজেলা, ফেনী সদর, সোনাগাজী উপজেলা, ফুলগাজী উপজেলা, পরশুরাম এবং দাগনভূঞা।

খাগড়াছড়ি জেলা

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্ব দিকে অবস্থিত। খাগড়াছড়ি ভারতের একটি সীমান্তবর্তী জেলা। ১৯৮৪ সালে ২৭৪৯ বর্গকিলোমিটার জায়গা নিয়ে খাগড়াছড়ি জেলা ঘোষণা করা হয়। খাগড়াছড়ি হালদা নদীর তীরে অবস্থিত। খাগড়াছড়ি জেলার বেশির ভাগ অঞ্চল দুর্গম পাহাড় ঘেরা। খাগড়াছড়ি সদর, দিঘীনালা, পানছড়ি, লক্ষীছড়ি, মহালছড়ি, মানিকছড়ি, রামগড় এবং মাটিরাঙ্গা এই আট টি উপজেলা নিয়ে খাগড়াছড়ি জেলা গঠিত।

লক্ষ্মীপুর জেলা

লক্ষ্মীপুর বাংলাদেশের উপকূলবর্তী মেঘনা নদীর মোহনায় অবস্থিত। লক্ষ্মীপুর জেলা ১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। লক্ষ্মীপুর জেলার আয়তন ১৪৪০.৩৯ বর্গকিলোমিটার। লক্ষ্মীপুর জেলা রহমতখালী নদীর তীরে অবস্থিত। লক্ষ্মীপুরে লক্ষ্মীপুর সদর, কমলনগর , রায়পুর, রামগতি ও রামগঞ্জ এই ৬টি উপজেলা নিয়ে গঠিত।

নোয়াখালী জেলা

১৮২১ সালে নোয়াখালী জেলা প্রতিষ্ঠিত হয়। নোয়াখালীর আয়তন ৩৬৮৫.৮৭ বর্গকিলোমিটার। নোয়াখালী জেলার পূর্ব নাম সুধারাম বা ভুলুয়া। জেলাটি মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীর তীরে অবস্থিত। নোয়াখালী জেলা মুক্তিযুদ্ধের সময় ১০ নং সেক্টরের অধীনে ছিল। নোয়াখালী জেলায় ৯টি উপজেলা নোয়াখালী, কোম্পানীগঞ্জ, বেগমগঞ্জ, হাতিয়া, সুবর্ণচর, কবিরহাট, সেনবাগ, চাটখিল ও সোনাইমুড়ী।

রাঙ্গামাটি জেলা

বাংলাদেশের একমাত্র জেলা যার সাথে ভারত এবং মিয়ানমারের সীমান্ত রয়েছে। রাঙ্গামাটি বাংলাদেশের অন্যতম পর্যটন জেলা। জেলাটি পার্বত্য জেলার অন্তর্গত। রাঙ্গামাটি জেলা ১৮৬০ সালে গঠিত হয় এবং আয়তন ৬১১৬ বর্গকিলোমিটার প্রায়। রাঙ্গামাটি আয়তনে বাংলাদেশের বৃহত্তর জেলা। রাঙ্গামাটি জেলায় উপজেলার সংখ্যা ৯ টি যথা- রাঙ্গামাটি সদর, কাপ্তাই, কাউখালী, বাঘাইছড়ি, বরকল, লংগদু, রাজস্থলী, বিলাইছড়ি, জুরাছড়ি এবং নানিয়ারচর।

মোটকথা, চট্টগ্রাম বিভাগ বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চট্টগ্রাম বিভাগকে ঘিরে বাংলাদেশে বিশাল এক পর্যটন শিল্প তৈরি হয়েছে। সমুদ্রের তীরবর্তী এর অধিকাংশ জেলাই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং সম্পদে ভরপুর।

ইরফান রানা-এর আরও প্রবন্ধ পড়ুন

* জেনে নিন আপনার অর্থ উপার্জনের সহজ উপায়

* হাঁস পালন হতে পারে উপার্জনের বড় মাধ্যম। হাঁস পালনের নিয়ম

* ক্রিকেটের সর্বশেষ খবর সরাসরি দেখুন। লাইভ ক্রিকেট স্ট্রিমিং

বিজ্ঞাপন

আরও প্রবন্ধ পড়ুন



বিজ্ঞাপন



© ২০১৬ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত LearnArticle.com